Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest

১. জীবনের চেয়ে কি গুলির দাম বেশি? তাছাড়া যুদ্ধে গোর দেওয়ার ফর্মালিটির চেয়ে গুলি ফুটানো অ-নে-ক সোজা। তাই ডাউট হইলেই ম্যাগজিন খালি কইরা ফেল। কিন্তু এতে কাজ হবে কি না তার কিন্তু কোনো গ্যারান্টি নাই, কারণ তোমার অস্ত্র হঠাৎ ডিস্টার্ব দিতেই পারে। কারণ সব অস্ত্রই আসলে টেন্ডার দিয়া কেনা, আর টেন্ডারে যে লোয়েস্ট বিডার সেই টেন্ডার পায়। আর লোয়েস্ট বিডার কখনোই হায়েস্ট কোয়ালিটি এন্সিউর করতে পারে না। সুতরাং এই অস্ত্র মোক্ষম সময় ডিস্টার্ব দিবে, এইটা স্বাভাবিক।

২. বেয়নেট ফাইটিং-এর সূত্র হলো, যার কাছে শেষ পর্যন্ত একটা বুলেট অবশিষ্ট থাকে, সে-ই জিতে, বেয়নেটওয়ালা মরে।

৩. পিন খোলার পর গ্রেনেড পাঁচ সেকেন্ডের মধ্যে ছুড়ে মারার কথা থাকলেও, তিন সেকেন্ড পরেও ফেটে যেতে পারে। এই সম্ভাবনাকে নাকচ করার উপায় নাই, কারণ যার গ্রেনেড তিন সেকেন্ডে ফাটছিল, সে আর কমপ্লেইন করার জন্য বেঁচে থাকে না।

৪. যখন তোমার আর্টিলারি ফায়ার জরুরি দরকার, ঠিক তখনই দেখবা ওয়্যারলেস সেট কাজ করতেছে না।

আর লজিস্টিক সম্পর্কে মারফি বলেন, একটা কাজের জন্য যা যা একসাথে প্রয়োজন তা কখনো একসাথে সাপ্লাই দেওয়া যায় না, তাই টানাটানি চলতেই থাকবে।

পুনশ্চ
আপাতত মারফির আরেকটা বচন দিয়া শেষ করি, ‘Anything you do can get you killed, including doing nothing!’ মানে যুদ্ধে কোনো কিছু না করে ঘাপটি মেরে পড়ে থাকলেও কিন্তু বেঁচে থাকার কোনো নিশ্চয়তা নাই। তাই চুপচাপ বসে না থেকে আর মারফির চৌদ্দগুষ্টি উদ্ধার না করে, চলেন নিজের কাজটা ভালো করে করার চেষ্টা করি।

ট্রিভিয়া
প্রধান অতিথি ভাষণ দেওয়া শুরু করতেই যদি দেখেন হঠাৎ কোনো কারণ ছাড়াই মাইকটা কাজ করছে না কিংবা ঠিক উনার মাথার উপরের ফ্যানটা বারবার বন্ধ হয়ে যাচ্ছে; বুঝবেন এটাকেই বলে মারফি’স ল!

পুন : পুনশ্চ
মারফি’স লজ অব কম্বেট বেশ পুরাতন জিনিস; কিন্তু এর আবেদন ‘এভারগ্রিন!’

Delwar Hossain Khan (Del H Khan)
দেলোয়ার হোসেন খান (ডেল এইচ খান)

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *