Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest

অধ্যায় ৯

মালি

চোখে মুখে কড়া সূর্যের আলো অনুভব করল রাশেদ।
চোখ মেলে মাথার দুপাশে সবুট কিছু পা দেখতে পেলো সে; বুটগুলো সব দীর্ঘ ব্যবহারে জীর্ন আর জায়গায় জায়গায় একাধিক তালি দেয়া।

দৃষ্টি প্রসারিত করতে করতেই সে পিঠের নিচে ঝাঁকুনি টের পেলো; সঙ্গে গাড়ির ইঞ্জিনের গর্জন আর তেল পোড়া গন্ধ। বুঝতে পারল, সম্ভবত একটি পিক আপের মেঝেতে শুইয়ে রাখা হয়েছে ওকে।

জিম্মি হিসেবে ওকে বাঁচিয়ে রাখবার চেষ্টা করছে ওরা, সেটা বুঝতে পারার পর থেকে রাশেদ নতুন করে বেঁচে থাকার স্বপ্ন বুনতে শুরু করেছিল। বয়স্ক সেই মহিলাটি সম্ভবত স্থানীয় কবিরাজ গোছের কেউই হবে। পায়ে, পাঁজরে আর কাঁধে অজানা কোনো এক পাতা বেটে মাখিয়ে দিয়েছিল সে। হাটুর নিচে চার পাঁচটা খেজুরের ডাল দিয়ে শক্ত করে বেঁধে দেয়ার পর থেকে সে বাম পায়েও সারা পাচ্ছে। তবে নড়তে গেলেই পাঁজরে প্রচন্ড ব্যাথা হচ্ছে।

সকালে কঠিন চেহারার দুজন তুয়ারেগ যুবক মিলে তাকে বিছানা থেকে জোর করে উঠিয়ে আনবার সময় এই পাঁজরের ব্যথায়ই সে আবার জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিল। এখন বোঝা যাচ্ছে যে, সংজ্ঞাহীন অবস্থায়ই তাকে পিক আপে তুলে পিক আপের মেঝেতে শুইয়ে দেয়া হয়েছিল।হঠাৎ করেই প্রশ্নটা রাশেদের মাথায় খেলে গেল; ওকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে ওরা? কেনই বা নিয়ে যাচ্ছে?

Delwar Hossain Khan (Del H Khan)
দেলোয়ার হোসেন খান (ডেল এইচ খান)

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on pinterest

1 thought on “মিশন তিম্বক্তু (নয়)”

  1. Pingback: মিশন তিম্বক্তু (আট) – Delwar Hossain Khan

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *